Main Menu

ভিটে বাড়ী বিক্রি করে সর্বশান্ত অনাহারির আত্ম হনন

কেরাণীগঞ্জের ভাড়ালিয়ায় যুবকের গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা

মুহাম্মাদ আদিল রহমান-
কেরাণীগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম।

কেরাণীগঞ্জ ভাড়ালিয়া এলাকার ভিটে বাড়ী সহায় সম্বল বিক্রি করে দিশেহারা আওলাদ (৪৫),যন্ত্রনার বালাই এড়াতে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

সরেজমিন উপস্থিত হয়ে ঘটনার বিবরন জানা যায় যে,কেরাণীগঞ্জজ মডেল থানা শাক্তা ইউপির ভাড়ালিয়া মুসলিম নগরস্থ সোনা মিয়ার ছেলে আওলাদ হোসেন, ছেলে হিসেবে অত্যন্ত নম্র ভদ্র ছিলো।তবে বহু দিন ধরেই জুয়া খেলায় ছিলো আসক্ত,জুয়ার নেশায় ভিটে বাড়ী সহায় সম্বল বিক্রি করে দিশেহারা  আওলাদ অনাহারে অর্ধাহারে দিন মাস অতিবাহিত ককরছিলো।

ছোট্র দুটি  মেয়ে নিয়ে পরিবার সহ ন্না খেয়ে থাকার যন্ত্রত্রনা সহ্য করতে না পেরে,গত কয়েক দিন আগেও ভাড়ালিয়া কবরস্থান সংলগ্ন একটি গাছে দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে সে। মাছ ধরার জেলেদের নজরে পড়লে জেলেরা তাকে উদ্ধার করে।ফাঁসি দিতে ব্যর্থ হওয়া আওলাদ ৩০ অক্টোবর রোববার গভীর রাতে,বাড়ীর পাশের একটি গাছে দড়ি ঝুলিয়ে পূনরায় আত্ম হনন নিশ্চিত করে।

পরদিন সোমবার ভোরে ফজর নামাজ শেষে মুসুল্লিরা গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় আওলাদের লাশ দেখতে পেয়ে তার পরিবারকে খবর দেয়,এ দৃশ্য দেখে আওলাদের পরিবারের লোকজন কান্নায় লুটিয়ে পড়েন।
তার বয়স্ক মা ছেলের লাশ জড়িয়ে ধরে হাউ মাউ করে বিলাপ করতে থাকেন।আওলাদের স্ত্রী কেরাণীগঞ্জ টুয়েন্টিফোরকে জানান-বর্তমানে তার ছোট দুটি মেয়েকে খাওয়ানোর মত কেজি খানেক চালও নেই ঘরে।তার উপর একাধিক দেনাদারের চাপ তো আছেই।ভিটে বাড়ীটাও মরার আগেই বিক্রি করে ফেলেছিলেন আওলাদ,দুই মেয়ে নিয়ে থাকার মত টিনের চালাও রেখে যায়নি সে।

আওলাদের অনাকাঙ্খিখিত মৃত্যুর
সংবাদ পেয়ে শাক্তা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন লিটন তৎক্ষনাৎ ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন, নিহত আওলাদের পরিবারকে সমবেদনা ও আওলাদের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন।ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে জনাব লিটল কেরাণীগঞ্জ মডেল থানা, আটি পুলিশ ক্যাম্পকে অবগত করেন।আটি পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাদশা মিয়া উপস্থিত হয়ে লাশ নামানো সহ প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহন করেন।
আওলাদের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া বিরাজ করছে।

© 2016, কেরাণীগঞ্জ টুয়েন্টিফোর. <<- প্রথম পাতায় ফিরতে ক্লিক করুন http://www.keranigonj24.com

Facebook Comments





Leave a Reply